২৫ সংস্থার কাছে পৌর কর বাবদ পাওনা ১৩২ কোটি টাকা

অর্থনীতি

Sharing is caring!

সরকারি ২৫টি সংস্থার কাছে পৌর কর বাবদ প্রায় ১৩২ কোটি টাকা পাওনা রয়েছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক)। নানা উদ্যোগ নিয়েও আদায় করা সম্ভব না হওয়ায় অবশেষে  দপ্তরসংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিতে যাচ্ছে চসিক।

চসিকের রাজস্ব শাখা সূত্রে জানা গেছে, ২০১৭-১৮ অর্থবছর পর্যন্ত পৌর কর বাবদ অনাদায়ী ছিল ১২৮ কোটি ৩৭ লাখ টাকা। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে পৌর করের দাবি ছিল ১৭ কোটি ৪৯ লাখ ৬৫ হাজার ৭৫১ টাকা। এর বিপরীতে আদায় হয়েছে ১৩ কোটি ৬০ লাখ ৪৬ হাজার ৩৮৭ টাকা। অর্থাৎ সর্বশেষ অর্থবছর পর্যন্ত বিভিন্ন সংস্থার কাছে চসিকের অনাদায়ী পৌর করের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৩১ কোটি ৯২ লাখ ৮৮ হাজার ২০৮ টাকা।

জানা গেছে, সরকারি সংস্থাগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি বকেয়া রয়েছে রেলপথ মন্ত্রণালয়ে। চট্টগ্রামে রেলের জমি ও অবকাঠামোর পরিমাণ দেশের অন্যান্য এলাকার চেয়ে বেশি থাকায় পৌর করের পরিমাণও বেশি। প্রতি বছর ৩ কোটি টাকারও বেশি পৌর কর জমা দিলেও সংস্থাটির আগের পৌর কর অনাদায়ী থাকায় বকেয়ার পরিমাণ বেড়ে ৮৪ কোটি ৭৩ লাখ ৫৩ হাজার ৪৬৬ টাকায় পৌঁছেছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা গণপূর্ত বিভাগের প্রতি বছর গড়ে পৌর কর আসে ২ কোটি টাকার বেশি। সর্বশেষ অর্থবছরে গণপূর্ত বিভাগ পরিশোধ করেছে ১ কোটি ২৭ লাখ ৪২ হাজার ৫৫৪ টাকা। অর্থাৎ সংস্থাটির কাছে বকেয়া রয়েছে ১০ কোটি ৮৮ লাখ ৮১ হাজার ৪৩৯ টাকা। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে সর্বশেষ অর্থবছরে পাওয়া গেছে মাত্র ১৩ লাখ ৭৫ হাজার ৭৬৭ টাকা। যদিও সংস্থাটির কাছে মোট বকেয়ার পরিমাণ ৫ কোটি ৩২ লাখ ৫১ হাজার ৮৪৭ টাকা।

জানতে চাইলে চসিকের প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা আবু ছালেহ চৌধুরী  বলেন, সরকারি সংস্থাগুলোর কাছে পাওনা পৌর কর দীর্ঘদিনের পুরনো। একসময় স্বাভাবিক নিয়মে পৌর কর সংগ্রহ করা হলেও মুষ্টিমেয় কয়েকটি সংস্থার কারণে বকেয়া বড় অংকে পৌঁছেছে।

চসিকের অনাদায়ী রাজস্বের তালিকা পর্যালোচনায় দেখা গেছে, সবচেয়ে কম বকেয়া রয়েছে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের কাছে। এ মন্ত্রণালয়ের কাছে চসিকের পৌর কর বকেয়া ছিল ১৪ লাখ ৭৩ হাজার ৩৫৬ টাকা। এর মধ্যে সর্বশেষ অর্থবছরে আদায় হয়েছে ৫ লাখ ২ হাজার ১০ টাকা। অর্থাৎ প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের কাছে চসিকের পৌর কর অনাদায়ী রয়েছে মাত্র ৯ লাখ ৭১ হাজার ৩৪৬ টাকা। এছাড়া সর্বশেষ অর্থবছরে রেলওয়ে জমা দিয়েছে ৪ কোটি টাকা, শিক্ষা মন্ত্রণালয় ১ কোটি ৮৮ লাখ ৬৩ হাজার ৮১৮, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ১ কোটি ৩০ লাখ ৬২ হাজার ২৩৯, শিল্প মন্ত্রণালয় ৯৪ লাখ ২০ হাজার ৫৩৪ ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ১ কোটি ২২ লাখ ৩৩ হাজার ৩৫০ টাকা। মূলত বিভিন্ন মন্ত্রণালয়সংশ্লিষ্ট চট্টগ্রামের স্থানীয় অফিসগুলোর ভবনের পৌর কর বাবদ বিপুল পরিমাণ অনাদায়ী আটকে আছে বলে জানিয়েছেন সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *