চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগে ঐক্যের সুবাতাস ছড়াচ্ছেন নওফেল

চট্টগ্রাম মহানগর

Sharing is caring!

চট্টগ্রামের আওয়ামী রাজনীতিতে ঐক্যের সুবাতাস ছড়িয়ে দেয়ার আপ্রাণ চেষ্টা করছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল৷ তাঁর সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করে এমনটাই মন্তব্য করছেন রাজনৈতিক কর্মী ও পর্যবেক্ষকরা৷

সাম্প্রতিক সময়ে চট্টগ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীদের সব বিভেদ গ্রুপিং ভুলে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার জন্য বারবার আহবান জানাতে দেখা গেছে তাঁকে৷ শুধু আহবান জানানোতেই শেষ নয়, ঈদ উপলক্ষে চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় অন্যান্য নেতৃবৃন্দের বাসায় বাসায় গিয়ে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল।

চট্টগ্রামের রাজনীতিতে গ্রুপিং কোন্দল অনেকটা ঐতিহ্যগতভাবেই হয়ে আসছে অনেকদিন ধরে। রাজনীতিতে সক্রিয় হওয়ার শুরু থেকেই কোন্দল গ্রুপিংয়ে জড়ানোয় অনাগ্রহ দেখিয়ে নজর কেড়েছিলেন নওফেল৷

পরিচ্ছন্ন ইমেজের তরুণ নেতা নওফেলকে রাজনীতিতে পিতা মহিউদ্দিন চৌধুরীর উত্তরসূরী হিসেবেই বিবেচনা করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা৷ গেল ঈদে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের এই সাংগঠনিক সম্পাদক একে একে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ,জ,ম নাছির উদ্দীন, সহ সভাপতি আফসারুল আমিন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুচ ছালাম,বর্তমান চেয়ারম্যান জহিরুল আলম দোভাষ,বন্দর আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল লতিফ, নগর আওয়ামী লীগ সহ সভাপতি খোরশেদ আলম সহ প্রায় সকল শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দের বাসায় গিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন। ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়ে একজন অন্যজনের বাসায় যাওয়ার রেওয়াজ আগে থেকে থাকলেও এভাবে একজন শীর্ষ নেতা সবার বাসায় গিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন এমন ঘটনা অতীতে খুব একটা ঘটেনি বলেই দাবি পর্যবেক্ষকদের৷

একই সময়ে গত ৭ জুন ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর,দক্ষিণ আওয়ামী লীগের এক আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে গ্রুপিংয়ের রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসতে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে নওফেল বলেছিলেন, আমরা যারা নতুন রাজনীতিতে এসেছি, আমরা যদি শুধুমাত্র গোত্রভুক্ত (গ্রুপিং) রাজনীতি করি, গোত্রভুক্ত থেকে আমরা কিছু স্লোগান দিলাম, রাজনীতিটা করলাম, তাহলে আমাদের রাজনীতি বেশীদূর এগুবে না।

ঈদে সবার বাড়ি বাড়ি গিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় করা ও এই বক্তব্যকে একই সুতোয় বেধেই পর্যবেক্ষকরা দাবি করছেন চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগে ঐক্যের সুবাতাস বইয়ে দেয়ার মিশনে নেমেছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল।

সাবেক ছাত্রনেতা ও নগর যুবলীগের সদস্য ওয়াসিম উদ্দিন চৌধুরী সিনিউজ অনলাইনকে বলেন, ঈদের মূল বার্তাই হচ্ছে সৌহার্দ্য সম্প্রীতি স্থাপন করা। এছাড়া মুরুব্বীদের সাথে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করা রাজনৈতিক শিষ্ঠাচারের অংশ। রাজনীতির শুরু থেকেই মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল গ্রুপিং বিভেদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন। এখানে নতুন করে শুরু করার কিছু নেই।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ সম্পাদক আবু সাঈদ সুমন বলেন, ‘নতুন প্রজন্মের মধ্যে একটি ইতিবাচক রাজনৈতিক ধারা তৈরিতে শুরু থেকেই সচেষ্ট মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। এছাড়া রাজনৈতিক শিষ্ঠাচার ও সৌজন্যতাবোধের চর্চায় তিনি সব সময় নজর কেড়েছেন। সেই জায়গা থেকে উনার এই কর্মকান্ডগুলো প্রত্যাশিতই। তবে সবার বাড়ি বাড়ি গিয়ে সৌজন্য বিনিময়ের এই ব্যাপারটা আসলে উনার সৌজন্যতাবোধের গভীরতাটা তুলে ধরছে। ‘

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *