“নারী উন্নয়নে রাজনৈতিক নেতৃত্বে নারীর আরও ক্ষমতায়ন প্রয়োজন”

চট্টগ্রাম মহানগর

Sharing is caring!

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে ও উদ্যোগে নারীর ক্ষমতায়নের বিষয়ে খুব গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার। সরকার অনেকগুলো নারীবান্ধব আইন করেছে, যার ফলে নারীর ক্ষমতায়ন হয়েছে, তার অনেক ক্ষেত্রে অগ্রগতি ঘটেছে। কিছু আইন নারীকে সম্মান এনে দিয়েছে। কিন্তু এখনো অনেক সমস্যাও রয়েছে। সমস্যা গুলা চিহ্নিত করে সমাধানে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

পুরাতন কালুরঘাট আশ্রমে “নারী উন্নয়ন ও অগ্রগতি” নিয়ে মোহরা কর্মজীবী মহিলা সমাজ আয়োজিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু ছাত্র যুব উন্নয়ন পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ মানবাধিকার কাউন্সিল চট্টগ্রাম জেলার আহবায়ক সৈয়দ নজরুল ইসলাম।

তিনি আরও ভলেন, “বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে মনে করা হতো শুধুমাত্র পুরুষেরা উপার্জন করবেন। কিন্তু বর্তমানে অবস্থার অনেক পরিবর্তন ঘটেছে। নারীরা উপার্জন করছেন। ফলে বিভিন্ন ক্ষেত্রে তাঁদের সক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়েছে। পোশাকশিল্পে অনেক নারী কাজ করেন।

শিল্পকারখানার উন্নয়নে মালিক শ্রমিক পারষ্পরিক সম্পর্কের গুরুত্বের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিজিএমইএ) পক্ষ থেকে প্রথমবারের মতো শ্রম মন্ত্রণালয় বরাবর ওয়েজ বোর্ড গঠনের জন্য চিঠি দেওয়া হয়েছে। সেই অনুযায়ী ওয়েজ বোর্ড গঠিত হয়েছে। শ্রমিক আমাদের। তাঁদের বেতন-ভাতাও আমাদের দিতে হয়। আবার শ্রমিকদের সহযোগিতার ফলে পোশাকশিল্প এত দূর এসেছে। শিল্পকারখানায় যেমন শ্রমিক না থাকলে উন্নয়ন হবে না; ঠিক তেমনি শ্রমিক থাকল অথচ শিল্পকারখানা থাকল না, তাতেও উন্নয়ন হবে না। সুতরাং শ্রমিক এবং শিল্পকারখানার মালিকদের পরস্পরের সহযোগী হয়ে কাজ করা প্রয়োজন।

অর্থনীতিতে নারী শ্রমিকদের আবদানের ব্যাপারে তিনি বলেন, পোশাকশিল্পের সঙ্গে জড়িত নারীর ক্রয় সক্ষমতার কারণে বিভিন্ন ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প টিকে আছে। সুতরাং জিডিপিতে পোশাকশিল্প এবং তার শ্রমিক, বিশেষ করে নারী শ্রমিকদের অনেক বড় অবদান রয়েছে।

কানিজ ফাতেমা লাকির সভাপতিত্বে গীতা রানীর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু ছাত্রযুব উন্নয়ন পরিষদের সদস্য সচিব রফিকুল আলম বাপ্পী, বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মোহরা বঙ্গবন্ধু ছাত্র যুব উন্নয়ন পরিষদ এর সাধারণ সম্পাদক কফিল উদ্দিন, কর্মজীবি মহিলা সমাজের নেত্রী খুকী শীল, ছবি মহাজন, রিংকু দাশ, সুপ্রিয়া দি, স্মৃতি দে, রিজিয়া আক্তার, মুক্তা আচার্য্য ,লাভলি চৌধুরী, গুলজার বেগম, নাজিয়া আক্তার। সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন যুবলীগ নেতা মোহাম্মদ শফি ও আলী আকবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *