অজিদের হারিয়ে ফাইনালে ইংল্যান্ড

খেলাধুলা

Sharing is caring!

অজিদের ৮ উইকেটে হারিয়ে ২৭ বছর পর ফাইনালে স্বাগতিক ইংল্যান্ড। বিশ্বকাপের প্রথম ৫ আসরের ৩ বার ফাইনাল খেললেও স্পর্শ করা হয়নি সোনার হরিণ নামক ট্রপিটি। এবার কি তবে ছোঁয়া হবে সে স্বপ্নীল ট্রপি।

অপর দিকে এর আগে ক্রিকেট বিশ্বকাপ ইতিহাসে কখনো সেমিফাইনাল না হারা অস্ট্রেলিয়ার ৬ জয়ের বিপরীতে ছিলো এক টাই তবে আজ সে রেকর্ডটিও অক্ষুন্ন রাখতে দেয়নি ইংলিশরা।

বার্মিংহামে টস ভাগ্য অজিদের পক্ষে থাকলেও উইকেটের আচরণ ছিল রীতিমত ভয়ানক।আর সেটিই কাল হয়ে দাঁড়ালো তাদের জন্য, সব কটি উইকেট হারিয়ে নির্দিষ্ট ৫০ ওভার হতে ১ ওভার হাতে রেখে ২২৩ রান সংগ্রহ করে তারা। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলেই ০ রানে জোফরা আর্চারের বলে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে কাঁটা পরেন অধিনায়ক এ্যারন ফিঞ্চ।ওয়ান ডাউনে নেমে ক্রিজের আচরণ বুঝতে চেষ্টা করেন স্টিভেন স্মিথ। ততক্ষণে ক্রিস ওকসের হঠাৎ লাফিয়ে ওঠা বল বুঝতে না পারে স্লিপে ক্যাচ ৯ রানে ফিরেন ডেভিড ওয়ার্নার। প্রথমবার বিশ্বকাপে খেলতে নামা পিটার হ্যান্ডসকম্বের স্টাম্পও উড়িয়ে দেন ওয়ার্নারকে ফেরানো ওকসই। ১৪ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে মহাবিপদে অস্ট্রেলিয়া।

সেই মহাবিপদ সামাল দিতে স্মিথকে সঙ্গ দিতে নামলেন উইকেটরক্ষক অ্যালেক্স ক্যারি। দুজন মিলে রানের চাকাটা মোটামুটি সচল রাখলেও তাতে আবারও আঘাত হানেন আদিল রশিদ আর তাতে অর্ধশতক থেকে চার রান দূরে থাকা ক্যারি জেমস ভিন্সকে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান।

ক্যারি ফিরতে না ফিরতে চার বল পরে মার্কোস স্টয়নিসকে ০ রানে ফেরান সেই আদিল রশিদ। এর কয়েক ওভার পর আর্চারের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হয়ে ২২ রানে প্যাভিলিয়নের পথ ধরতে হয় ম্যাক্সওয়েলকে। স্টার্ক আউট হওয়ার আগে করেন ২০০ পার করা ২৯ রান।

একের পর এক বাকি সতীর্থদের বিদায়ে একাই লড়েছেন স্মিথ। ৬ চারে ১১৯ বলে ৮৫ করে ইনিংসের ১৭ বল বাকি থাকতে রানআউটে থামে তার ইনিংস।

৩টি করে উইকেট পেয়েছেন ওকস ও আদিল রশিদ। ২ উইকেট পেয়েছেন আর্চার।

২২৪ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুর কিছু ওভার রক্ষণাত্মক খেললেও আস্তে আস্তে আজি বোলারদের তুলোধোনা করতে থাকেন ইংলিশ দুই ওপেনার জেসন রয় ও জনি বেয়ারস্টো। এই জুটিতে আসে ১২৪ রান। স্টার্কের বলে এলবি ডব্লিউর শিকার হয়ে ফেরা জনি বেয়ারস্টো করেন ৩৪ রান। অপর দিকে আম্পায়ারের বাজে সিদ্ধান্তের বলি হয়ে ৮৫ রানে ফিরে যান জেসন রয়, তার আগে রিভিউ নষ্ট করে ফেলেন তার আরেক সতীর্থ জনি বেয়ারস্টো।

এরপর জুটি বাঁধেন জো রুট ও ইংলিশ ক্যাপ্টেন ইয়ান মরগান, এই জুটিতে আসে ম্যাচ উইনিং ৭৭ রান। এরফলে ২ উইকেটে ২২৪ রান টপকাতে ইংলিশদের খরচ হয় মাত্র ৩২.১ ওভার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *