কক্সবাজারের ঈদগাঁহ’তে ধর্ষণের শিকার হয়েছে কন্যা শিশু ৮

কক্সবাজার বৃহত্তর চট্টগ্রাম

Sharing is caring!

কক্সবাজারের সদর ঈদগাঁহ’তে ধর্ষণের শিকার হয়েছে আট বছরের কন্যা শিশু।ঘটনা ধামাচাপা দিতে মরিয়া ধর্ষকের পরিবার।

গত শুক্রবার(২ আগস্ট) বেলা ১২টার দিকে ঈদগাঁহ ইউনিয়নের মাছুয়াখালী ট্রান্সপোর্ট অফিস সংলগ্ন একটি দোকানে এ ঘটনা ঘটে।

প্রাপ্ততথ্যের ভিত্তিতে জানা যায়,স্থানীয় মোরা পাড়ার একটি দোকানে সাবান আনতে গেলে একই এলাকা দোকানদার ছলিমের হাতে শিকার হন ৮বছরের শিশু রুপা।

ধর্ষক ছলিম মাছুয়াখালী মোরা পাড়া এলাকার শফি আলম প্রকাশ (বাডু ড্রাইভারের) ছেলে বলে জানা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন,ধর্ষণের শিকার শিশু রুপা দোকানে সাবানের জন্য আসলে বকাটে ধর্ষক ছলিম তাকে ফুসলিয়ে দোকানের পেছনে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।ধর্ষণে পর শিশু রুপা রক্তাক্ত অবস্থায় বাসায় ফিরে যাওয়ার সময় আমাদের নজরে পড়ে।এলাকায় বিষয় জানাজানি হলে ঘটনা ধামাচাপা দিতে মরিয়া হয়ে পড়েন ধর্ষকের পরিবার।মোটা অংকের টাকাও ভয়ভীতি দেখিয়ে প্রভাবশালী ব্যক্তিদের মাধ্যমে সমাধান করতে চায় ধর্ষকের পরিবার।

পরে ধর্ষণের শিকার শিশু রুপাকে প্রাইভেট ক্লিনিক ভর্তি করা হলে অবস্থা খারাপ হলে। গত শনিবার কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

স্থানীয় ইউপি মেম্বার বলেন,ঘটনা সত্য।ধর্ষকের পরিবার মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ঘটনাটি সমাধানের জন্য আসলে আমি ধর্ষণের শিকার শিশু রুপার পরিবারকে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া পরামর্শ দি।ধর্ষণের শিকার রুপা এখন কক্সবাজার সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এবিষয়ে ঈদগাঁহ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক ইনচার্জ মো. আছাদুজ্জামান বলেন,এ বিষয়ে ভিকটিমের পরিবার আমাদের কোন ধরনের লিখিত অভিযোগ করেনি।আমরা এই বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *