বিবর্ণতায় স্বপ্ন আঁকে রংপেন্সিল

ফিচার

Sharing is caring!

মনিরুল কবির বাধন: ২০১৫ সালের মহান বিজয় দিবসে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্য দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ২২ জন শিক্ষার্থী এক হয়ে পথে নামে এক স্বপ্নের খোঁজে। সমাজকে ক্যানভাস করে স্বপ্নের রঙ দিয়ে সেই ক্যানভাসে আঁকা স্বপ্ন ছিল তাদের। সে স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে হাতে তুলে নেয় রঙ্গিন এক রং তুলি। যাকে তারা স্বপ্ন এঁকে নাম দিয়েছে ‘রংপেন্সিল’। সেই থেকে বিবর্ণতায় প্রতিনিয়ত স্বপ্ন এঁকে যাচ্ছে রংপেন্সিল।

স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন রংপেন্সিল। “মানবতা, দেশাত্মবোধ, সৃষ্টিশীলতা” এ তিনটা মুল বিবেচ্য স্বপ্ন সম্ভাবনা সামনে রেখে পথচলায় ব্যস্ত পথিক রংপেন্সিল। স্বপ্ন দুর, বহুদুর। ভালোবেসে, ভালোবাসায় ভালোর ভাবনায় এই স্বপ্ন পুরনের ইচ্ছে শক্তি তাদের দিয়েছে অদম্য এগিয়ে চলার প্রেরণা। তাই তাদের পথচলা সুদুর সফলতার আঙ্গিনায়।

প্রথম দিকে থেকে বিভিন্ন ব্যতিক্রমী কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে নিজেদের তুলে ধরে রংপেন্সিল। বিভিন্ন ব্যতিক্রমী আয়োজনের মধ্য দিয়ে তারা পালন করতো সবগুলো জাতীয় দিবস।

পথ শিশুদের নিয়ে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, কুইজ, দিবস ভিত্তিক ইতিহাস জানানো, দিবসের তাৎপর্য নিয়ে গল্প করা ইত্যাদি কার্যকর এবং ব্যতিক্রমী কর্মকান্ডে নিজের সংযুক্ত করতে থাকে রংপেন্সিল।

২০১৬ সালে হওয়া ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুতে সন্দ্বীপে অনেক পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়, তখন রোয়ানো আক্রান্তদের পাশে দাঁড়ায় রংপেন্সিল। রংপেন্সিলের স্বেচ্ছাশ্রমে ৫ টি পরিবারকে ঘর তৈরি করে দেয়া হয়।

একই বছর সন্দ্বীপের শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান শিক্ষায় উৎসাহী করতে বিজ্ঞান বিকাশ নামে একটা ইভেন্ট পরিচালনা করে রংপেন্সিল। যেখানে সন্দ্বীপের সব স্কুলের অষ্টম শ্রেণী থেকে থেকে ৩০ জন করে শিক্ষার্থী নির্বাচন করে সবাইকে নিয়ে একটা সেমিনার করা হয়। এ সেমিনার ছিলো সন্দ্বীপের জন্য সম্পুর্ন নতুন একটা ধারনা। অথচ আজকের প্রযুক্তি নির্ভর যুগে এ ধরনের আয়োজন হয়ে উঠেছে অপরিহার্য। এর গুরুত্ব অনুধাবন করেই আয়োজিত হয় রংপেন্সিলের এ আয়োজন।

রংপেন্সিলের উদ্যোগে বিজ্ঞান বিকাশ কর্মসূচির আওতায় এই সেমিনার আয়োজিত হয় সন্দ্বীপের আব্দুল হাকিম অডিটোরিয়ামে। নির্বাচিত ৫৬০ জন শিক্ষার্থীদের এই সেমিনারে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বি,জি,সি ট্রাস্ট ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. সরোজ কান্তি সিংহ হাজারী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের স্পোর্টস সায়েন্স ডিপার্টমেন্টের চেয়ারম্যান এ,এইচ,এম রাকিবুল মাওলা, চট্টগ্রাম মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক কাজী নাজিমুল ইসলাম। বিশেষ বিজ্ঞান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সুইডেন চাল্মার্স ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলোজির গ্রাজুয়েট স্টুডেন্ট মোঃ নুর হোসেন।

এর ধারাবাহিকতায় সন্দ্বীপ উপজেলা পরিষদের তৎকালীন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা গোলাম জাকারিয়ার আহবানে সন্দ্বীপ উপজেলা পরিষদের উদ্যোগে বিজ্ঞান মেলা আয়োজনের সমন্বয় করে রংপেন্সিল।

এছাড়া বিভিন্ন সময়ে ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্প করা, বিভিন্ন স্কুল, কলেজ এ বৃক্ষরোপণ, সামাজিক সচেতনতা তৈরিতে নানা কর্মসুচি, জাতীয় দিবস এ সক্রিয় অংশ গ্রহন, শীতার্তদের মধ্যে উষ্ম ভালোবাসা বিতরন সহ অসংখ্য সমাজ উন্নয়ন মুলক কাজে নিজেদের সংযুক্ত করে যাচ্ছে রংপেন্সিল। এ যেনো প্রতিনিয়ত নিজেদের হরেক রং এ সমাজ রাঙ্গাচ্ছে ভালোবেসে পরম আদরে।

রংপেন্সিলের কর্মকান্ড ও কর্মপরিকল্পনা সম্পর্কে রংপেন্সিলের আবু রায়হান তানিমের সাথে কথা বললে তিনি জানান ‘আমরা এখন সংগঠনের কিছু নীতিনির্ধারণী বিষয় প্রস্তুত করতে কাজ করছি। আমাদের বেশিরভাগ সদস্যই ইতোমধ্যে শিক্ষাজীবন শেষ করে কর্মজীবনে প্রবেশ করেছে। অল্প কিছু সদস্য শিক্ষা জীবনের শেষ পর্যায়ে আছে। এই কারণে সবাই ব্যক্তিগত কাজে কিছুটা ব্যস্ত। আগামীতে আমরা সংগঠনে নতুন সদস্য নিব। আর শিক্ষা ও সামাজিক উন্নয়নে বিশেষ খাত টার্গেট করে আমরা কাজ করবো। মানবিক কাজগুলোও আমরা করার চেষ্টা করবো সতটুকু সম্ভব। তবে আমাদের মেইন ফোকাসটা থাকবে শিক্ষা ও সামাজিক খাতের উন্নয়নে স্বেচ্ছাসেবী কাজ করা।’

রঙ হয়ে সমাজের বিবর্নতাকে রাঙিয়ে দেয়ার মহান ব্রত নিয়ে সমাজ জুড়ে বিরাজ করছে রংপেন্সিলরা। আসুন ভালোবেসে ভরে দিই রংপেন্সিলদের স্বপ্ন রঙ এর কৌটা………।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *