টেকনাফের যুবলীগ হত্যা মামলার প্রধান রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নূর মোহাম্মদ সহযোগীসহ আটক

কক্সবাজার বৃহত্তর চট্টগ্রাম

Sharing is caring!

টেকনাফের যুবলীগ হত্যা মামলার প্রধান আসামি জনতার হাতে অবশেষে ধরা পড়লো।টেকনাফের শালবনকেন্দ্রিক রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নূর মোহাম্মদ ওরফে নুর মোহাম্মদ ডাকাত।

আজ শনিবার (৩১ আগস্ট) দুপুরে টেকনাফের রঙ্গিখালী উলুচামরী পাহাড়ি এলাকায় সহযোগী অপর রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী আমান উল্লাহসহ ধরা পড়ে নূর মোহাম্মদ। পরে জনতা তাদের পুলিশের হাতে তুলে দেয়।

আটক নুর মোহাম্মদ জাদিমোড়া জুম্মা পাড়া ২৭নং শিবিরে এলাকায় বসবাস করে আসছিল। তার পিতার নাম কালা মিয়া। ১৯৯১ সালের পরে নূর মোহাম্মদ মিয়ানমার হতে পালিয়ে এসে হ্নীলা ইউনিয়নের জাদিমোড়া এলাকায় বসবাস শুরু করে। পরে এখানে বেশ কয়েকটি বিয়ে করে নিজের অবস্থান শক্তিশালী ও সশস্ত্র গ্রুপ তৈরি করে ইয়াবা পাচার, হত্যা গুমসহ নানা অপরাধ সংগঠিত করে যাচ্ছিল।

আটককৃত তার অপর সহযোগী আমান উল্লাহ টেকনাফ নয়া পাড়া নিবন্ধিত শরণার্থী শিবিরের বি ব্লকের সেড নং ৭৪৯ এর ৪নং কক্ষের বাসিন্দা। তার পিতার নাম মো. শফি প্রকাশ কালা ডাক্তার। এরা রঙ্গিখালী এলাকায় অপর একটি ডাকাত গ্রুপের হাতে আগে ধরা পড়ে। তারা পুলিশে না দেয়ার শর্তে নূর মোহাম্মদ ডাকাত হতে ৩০ লাখ টাকা আদায় করে। পরে টাকা হাতিয়ে নিয়ে ডাকাত দল রোহিঙ্গা ডাকাত নূর মোহাম্মদকে সহযোগীসহ পুলিশের হাতে তুলে দেয় বলে স্থানীয় সূত্রগুলো জানিয়েছে।

এ বিষয়ে হ্নীলা ইউপি চেয়ারম্যান রাশেদ মাহমুদ আলী বলেন, ‘এ ধরনের একটি বিষয় আমিও শুনতে পেয়েছি।এ বিষয়ে খোঁজখবর নিবেন বলে জানান।

গত ২২ আগস্ট রাতে স্থানীয় যুবলীগ সভাপতি ওমর ফারুক খুন হওয়ার ঘটনায় স্থানীয়দের মধ্যে তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। এরপর এলাকাবাসী রোহিঙ্গা শিবিরকেন্দ্রিক বিভিন্ন স্থাপনায় হামলা ও ভাঙচুর চালায়। প্রধান সড়ক অবরোধ করে রোহিঙ্গাদের অবাধ চলাচল প্রতিহত করতে থাকে।

এদিকে এ ঘটনার জের ধরে ইতিমধ্যে পুলিশের হাতে বন্দুকযুদ্ধে তিনজন রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী মারা যায় যারা যুবলীগ নেতা হত্যার আসামী। এ মামলার প্রধান আসামী হচ্ছে আটক নূর মোহাম্মদ।

যুবলীগ নেতা হত্যাকান্ডের পর আইনশৃংখলা বাহিনীও রোহিঙ্গা শিবিরকেন্দ্রিক সন্ত্রাসী দমনে তৎপর হয়ে উঠে। এতে সন্ত্রাসীরা শিবির হতে পালিয়ে পাহাড়ে অবস্থান নেয়।

এদিকে দু’জন রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী আটকের কথা স্বীকার করেছে টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাস। তিনি জানান, জনতার সহায়তায় তাদের আটক করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *