রাজধানীতে ১০ লাখ টাকা ছিনতাই,পুলিশ সদস্য আটক

সারাদেশ

Sharing is caring!

রাজধানীর মতিঝিলে পুলিশ পরিচয়ে ১০ লাখ টাকা ছিনতাই করে পালানোর সময় দুজনকে ধরে মারধর ও পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে পথচারীরা। আটকদের একজন বংশাল থানার পুলিশ কনস্টেবল মামুন বলে নিশ্চিত করেছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পুলিশের একজন ঊর্ধতন কর্মকর্তা।

বুধবার (৪ সেপ্টেম্বর) বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে এ ঘটনা বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। এসময় ওই ‍দুই ছিনকারীর আঘাতে আহত হন ব্যাংক থেকে টাকা তোলা ব্যবসায়ী আবুল কালাম আজাদ।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী, মতিঝিলের ব্যবসায়ী রকিবুল হাসান বলেন, পুলিশ পরিচয়ে ১০ লাখ টাকা ছিনতাই করে পালানোর সময় দুজনকে ধরে পুলিশে দিয়েছে জনতা। তারা নিজেদের পুলিশ সদস্য দাবি করলেও কোনো পরিচয়পত্র দেখাতে পারেনি। ছিনতাইয়ের সময় তাদের সঙ্গে থাকা মোটর সাইকেলটিও জব্দ করেছে পুলিশ। জব্দ হওয়া মোটরসাইকেলটির (ঢাকা মেট্টো ল ২৪-৩৬৯৯) সামনে পুলিশ লেখা রয়েছে।

মতিঝিল থানার এসআই এরশাদ হোসেন বলেন, ছিনতাইয়ের অভিযোগে দুজনকে থানা হাজতে রাখা হয়েছে। আসলেই কি ঘটেছিল তা জানার চেষ্টা করা হচ্ছে। যার টাকা ছিনতাই করা হচ্ছিল তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ছিনতাইকারীদের কবলে পড়া আবুল কালাম আজাদ জানান, তিনি পল্টন এলাকার ‘শখ’ ইলেকট্রনিক্সের মালিক। তিনি মতিঝিলের এনআরবি ব্যাংকের শাখা থেকে ১০ লাখ টাকা তুলে ফিরছিলেন। হঠাৎ রাস্তায় দুজন এসে তার সামনে দাঁড়ায়। এসময় মামুন ও জিতু নামের ওই দুইজন নিজেদের পুলিশ সদস্য বলে পরিচয় দিয়ে তাকে মোটর সাইকেলে বসতে বলেন।কিন্তু আবুল কালাম এতে রাজি না হলে মামুন হাতকড়া দিয়ে ও জিতু হেলমেট দিয়ে তার মাথায় আঘাত করেন।

আবুল কালাম বলেন, তাদের আঘাতে আমার মাথা ফেটে রক্ত বের হলে আমি রাস্তায় পড়ে যায়। তখন টাকার ব্যাগ নিয়ে মোটরসাইকেল নিয়ে মামুন ও জিতু পালানোর চেষ্টা করলে জনতা তাদের ধাওয়া দিয়ে ধরে ফেলে। তখনও তারা নিজেদের পুলিশের লোক বলে পরিচয় দেয়। পরে থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে তাদের আটক করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *