আগাম নির্বাচনের প্রস্তাব পাসে ফের ব্যর্থ বরিস জনসন

আন্তর্জাতিক

Sharing is caring!

ব্রেক্সিট নিয়ে সংকটের মুখে দ্বিতীয়বারের মতো আগাম নির্বাচনের প্রস্তাব উত্থাপন করে তা পাস করাতে ব্যর্থ হলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। ব্রিটিশ হাউজ অব কমন্সে এই প্রস্তাব পাসের জন্য ৪৩৪ ভোট প্রয়োজন হলেও তিনি পেয়েছেন মাত্র ২৯৩ ভোট। এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর সংসদে ছয়টি প্রস্তাব তুলে ছয় বারই ব্যর্থ হলেন বরিস।

সোমবার (৯ সেপ্টেম্বর) ব্রিটিশ গণমাধ্যমগুলোর খবরে বলা হয়েছে, স্থানীয় সময় দুপুরেই পাঁচ সপ্তাহের জন্য সংসদের সব ধরনের কার্যক্রম বন্ধের (প্রোরোগেশন) সিদ্ধান্ত জানায় ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ১০ ডাউনিং স্ট্রিট। পরে সংসদ অধিবেশন বসলে ফের আগাম নির্বাচনের প্রস্তাব উত্থাপন করেন বরিস। তবে গত সপ্তাহে যেমন তার আগাম নির্বাচনের প্রস্তাব সংসদ প্রত্যাখ্যান করেছিল, এবারও তেমনভাবেই তা প্রত্যাখ্যাত হয়েছে।

ব্রিটেনের আগামী সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে ২০২২ সালে। তবে ব্রেক্সিট ইস্যুতে কোনোভাবেই একটি গ্রহণযোগ্য চুক্তিতে পৌঁছাতে পারছে না ব্রিটেন। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, কোনো ধরনের চুক্তি ছাড়াই ব্রিটেনকে বেরিয়ে আসতে হবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে, যাকে বলা হচ্ছে চুক্তিহীন ব্রেক্সিট।

তবে এই চুক্তিহীন ব্রেক্সিট নিয়েও আপত্তি রয়েছে ব্রিটিশ সংসদের বেশিরভাগ সদস্যদের। তারা বলছেন, কোনো ধরনের চুক্তি করে ইইউ থেকে বের না হতে পারলে তাতে যুক্তরাজ্য ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এ পরিস্থিতিতে বরিস আগাম জাতীয় নির্বাচনের ডাক দিয়েছিলেন। তবে তাতে সাড়া মিললো না একাধিক উদ্যোগেও।

এদিকে, ব্রিটিশ হাউজ অব কমন্সের স্পিকার জন বেরকাউ পদত্যাগ করেছেন। আগামী ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত স্পিকারের পদে থাকবেন তিনি। তবে এর আগেই আগাম সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে সেই সময়ই তার পদের মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে।

পাঁচ সপ্তাহের জন্য সংসদের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাওয়ার আগে শেষ অধিবেশনে স্পিকার বলেন, সংসদে তিনি যে ১০ বছর সময় কাটিয়েছেন, তা ছিল অত্যন্ত সম্মান ও গৌরবের।

২০০৯ সালে কনজারভেটিভ এমপি মাইকেল মার্টিনের স্থলাভিষিক্ত হয়েছিলেন বারকাউ। তবে তার মেয়াদে হাউজ অব কমন্সে গালিগালাজ ও অশালীন শব্দের ব্যবহার বন্ধে তিনি তৎপর ছিলেন না বলে অভিযোগ রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *