বিদায় দেবী দুর্গার

অন্যান্য সংবাদ চট্টগ্রাম মহানগর

Sharing is caring!

সব অসুরের বিনাশ আর অনিয়ম-জঞ্জালকে সরাতে দেবী দুর্গা এসেছিলেন ঘোড়ায় চড়ে।

মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) অশুভ শক্তিকে পরাজিত করে ফের ঘোড়ায় চড়েই মর্ত্য থেকে স্বর্গে ফিরে গেলেন দেবী। এদিন প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো হিন্দুধর্মের সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গাপূজা।

বাংলা পঞ্জিকা অনুসারে এবার গত ২৮ সেপ্টেম্বর মহালয়ার মধ্য দিয়ে শুরু হয় দেবীপক্ষ। এরপর একে একে ষষ্ঠী থেকে দশমী। সবগুলো তিথিতেই চট্টগ্রামের পূজামণ্ডপগুলো ছিলো পূজারীদের বিনম্র প্রার্থণা আর নানান আনুষ্ঠানিকতায় পরিপূর্ণ। পাঁচদিনের মহাকর্মযজ্ঞের পর আজ ধরণীর জন্য দেবী রেখে গেলেন আশির্বাদ আর শিক্ষা। এ শিক্ষা সুন্দর, পরিপাটি-গোছানো মানবজনমের।

চট্টগ্রামের পূজামণ্ডপগুলোর পাশাপাশি সারাদেশের একত্রিশ হাজারেরও বেশি মণ্ডপ থেকে শোভাযাত্রার মাধ্যমে জলে বিসর্জন দেওয়া হলো দুর্গতিনাশিনীকে। এর আগে মঙ্গলবার সকালে বিহিত পূজার পর মন্দিরে মন্দিরে চলে সিঁদুর খেলা। সেইসঙ্গে নানা অর্চনায় পূজারীরা দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করেন। স্বর্গ থেকে আসা দেবী দুর্গা যেন সব অনিষ্ট বিনাশ করে সবার ঘরে ঘরে শান্তি পৌঁছে দেন ভক্তদের কণ্ঠে ছিল সেই প্রার্থনা।

এবারের দুর্গা পূজায় চট্টগ্রাম মহানগরের প্রায় ২৭০ টি পূজা মন্ডপ থেকে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতে আসেন প্রতিমা বিসর্জন দিতে।

বিকেল ৩টা থেকেই পতেঙ্গায় শুরু হয় প্রতিমা বিসর্জন। নগরের বিভিন্ন স্থান থেকে প্রতিমাসহ ভক্তরা মিছিলে মিছিলে ভীড় জমান পতেঙ্গা সৈকতে।

মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট চন্দন তালুকদার জানান, নগরে প্রায় ২৭০টি মণ্ডপে পূজা হয়েছে। পতেঙ্গা সৈকতে ১২০-১৩০ প্রতিমা বিসর্জিত হয়েছে।এছাড়াও ফিরিঙ্গিবাজারের অভয়মিত্র ঘাট, কাট্টলী সৈকত, পাহাড়তলীর বিভিন্ন পুকুর ও দীঘিতে, কালুরঘাটের কর্ণফুলী নদীতেও প্রতিমা বিসর্জিত হয়েছে। রাতেও অনেক মণ্ডপ থেকে নগরীতে ভক্তরা আসবেন প্রতিমা বিসর্জনের জন্য । এরজন্য আলোকায়নের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ‘সব মিলিয়ে অতীতের তুলনায় এবারের দূগোৎসব অনেক সুন্দর ভাবে সম্পন্ন হয়েছে।’

এদিকে, বিজয়া দশমীতে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত পরিদর্শনে যান চট্টগ্রাম সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দিন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার আমেনা বেগম,উপ-পুলিশ বন্দর কমিশনার, হামিদুর রহমান, চট্টগ্রাম মমহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ,প্যানেল মেয়র কাউন্সিলর চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, কাউন্সিলর শৈবাল দাস সুমন, সালেহ আহম্মদ চৌধুরী, মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা ইছা,সুমন দেবনাথ সুমন,অধ্যক্ষ অজন ব্যানার্জিসহ বিভিন্ন পূজা উদযাপনের নেতৃবৃন্দ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *