কোনো আশ্বাসেই অনশন স্থগিত করবেন না শিক্ষকরা!

জাতীয়

Sharing is caring!

কোনো ধরণের আশ্বাসেই অনশন স্থগিত করবেন না আন্দোলনরত শিক্ষকরা। আশ্বাসের বদলে সকল স্বীকৃতিপ্রাপ্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্তি চান নন–এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি গোলাম মাহমুদুন্নবী ডলার এবং সাধারণ সম্পাদক বিনয় ভূষণ রায়।

ডলার বলেন, অনেক আশ্বাস ও আলোচনা হয়েছে। আমরা আর এসব চাইছি না। অনেক কষ্ট করে খেয়ে না খেয়ে শিক্ষকতা করতে হচ্ছে। আমাদের এই কষ্টের কথা কর্তৃপক্ষ জানেন কিন্তু তারা উদাসীন। এভাবে চলতে পারে না। এমপিওভুক্তি না দিলে অনশন করতে করতে মরে যাব কিন্তু এবার আর ফিরে যাব না। স্বীকৃতিপ্রাপ্ত প্রতিটি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হোক এটাই আমাদের প্রত্যাশা ও দাবি।

বিনয় ভূষণ রায় বলেন, এমন আশ্বাস আগেও দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সরকারের সামর্থ্য নেই এই কথাটা সত্য নয়। আর্থিক দিক থেকে বাংলাদেশ এখন অনেক এগিয়েছে। সামান্য কয়েকজন শিক্ষকের বেতন দিতে পারার সামর্থ্য সরকারের হয়েছে। কেবল সামর্থ থাকলেই হবে না সদিচ্ছাটাও থাকা চাই। যেটা কর্তৃপক্ষের নেই। শিক্ষকদের পেটে খিদে রাখলে দেশের শিক্ষা আগাবে না।

গত (২০ অক্টোবর) রোববার সন্ধ্যায় বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনির সঙ্গে আলোচনা ফলপ্রসূ না হওয়ায় পর দিন ২২ অক্টোবর থেকে আবারো আমরণ অনশন শুরু করেন আন্দোলনরত শিক্ষক-কর্মচারীরা।

এর আগে, নতুন নীতিমালা স্থগিত করে আগের নিয়মে স্বীকৃতি পাওয়া সব বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্তির দাবিতে এবং এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ চেয়ে গত ১৫ অক্টোবর থেকে আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষক-কর্মচারীরা। গত শুক্রবার থেকে আমরণ অনশন শুরুর কথা থাকলেও শিক্ষামন্ত্রীর ফোনে প্রথম দফায় আমরণ অনশন স্থগিত করেন তারা।

এদিকে, শিক্ষকদের দাবি আদায়ের আন্দোলন প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, বর্তমান নীতিমালা অনুযায়ী এ বছরের এমপিওভুক্তির তালিকা চূড়ান্ত করা হয়েছে। এখন নতুন কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অন্তর্ভুক্ত করার সুযোগ নেই। তবে এই নীতিমালা পরিবর্তন করে পরের বছর থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তি করা হবে।

সর্বশেষ ২০১০ সালে ১ হাজার ৬২৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হয়েছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *