রাঙ্গুনিয়ায় ইউনিয়ন পরিষদে দুর্বৃত্তদের হামলায় আহত-৪, গ্রেফতার-১

উত্তর চট্টগ্রাম প্রচ্ছদ বৃহত্তর চট্টগ্রাম

Sharing is caring!

চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার মরিয়মনগর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালিয়েছে দূর্বৃত্তরা।

২৬ নভেম্বর (মঙ্গলবার) বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে মরিয়ম নগর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।
দুর্বৃত্তদের এ হামলায় ইউনিয়ন পরিষদের সচিব, ইউপি সদস্য ও দফাদার সহ আহত হয়েছেন ৪ জন।

এ হামলায় দুর্বৃত্তরা বেপরোয়া হয়ে বেশকিছু আসবাবপত্র ভাঙচুর ভাঙচুরের পাশাপাশি ভাঙচুর করেছে বঙ্গবন্ধুর ছবি, প্রধানমন্ত্রীর ছবি ও ড. হাছান মাহমুদের ছবি।
নষ্ট করে দেওয়া হয়েছে ইউনিয়ন পরিষদের তথ্যসেবা কেন্দ্রের তিনটা কম্পিউটার ও বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ ফাইল।
এতে প্রায় ৫ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতিসাধন হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

হামলায় আহতরা হলেন মরিয়ম নগর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মোঃ হারুন মেম্বার (৪৫), সচিব আবু আহম্মেদ সাইয়েম চৌধুরী (৪০), দফাদার মোঃ মুবিন (৩৫) ও সেবা নিতে আসা সাবেক ইউপি সদস্য মোবারক হোসেন (৪২)।
আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়।

এদিকে মরিয়ম নগর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে দুর্বৃত্তদের এই হামলার ঘটনায় অভিযান চালিয়ে মোঃ বাচা প্রকাশ বাগাইয়া (৩৫) নামের এক হামলাকারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
গ্রেফতারকৃত মোঃ বাচা প্রকাশ বাগাইয়া মরিয়ম নগর পূর্ব সৈয়দবাড়ি এলাকার সোনা মিয়ার পুত্র।

মরিয়মনগর ইউনিয়ন পরিষদ এর ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সেলিম বলেন, বিকেল সাড়ে ৩ টার দিকে ৪-৫ জন লোক রাম দা ও বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদের কার্যালয়ের সচিবের কক্ষে ঢুকে। তাঁরা সচিব আবু আহম্মেদ চৌধুরী’র কক্ষ ভাংচুর শুরু করে এবং সচিবকে মারধর করতে থাকে।

এসময় ইউপি সদস্য হারুনকে পেয়ে তাকে পেছন থেকে রাম দা দিয়ে কোপ দেয়। পরে তিনি বাইরে পালিয়ে গিয়ে রক্ষা পান। এসময় কয়েকজন লোক তাদের দুইজনকে পিছনে ধাওয়া করলে আমি আওয়াজ শুনে সচিবের কক্ষে যায়।
তারা পুনরায় পেছনে এসে আমাকে হামলা চালাতে আমার কক্ষে যায়। এসময় দফাদার মুবিন আমাকে বাঁচাতে সচিবের কক্ষে আমাকে তালাবদ্ধ করলে তারা তাকেও মারধর করে। তারা আমার কক্ষের দেয়ালে টাঙানো বঙ্গবন্ধুর ছবি, প্রধানমন্ত্রীর ছবি ও তথ্যমন্ত্রীর ছবিসহ আমার নিজ কক্ষের বেশকিছু আসবাবপত্র ভাঙচুর করে। পরে আমাকে খুঁজতে গিয়ে পরিষদের তথ্যসেবা কেন্দ্রের কক্ষে গিয়ে তিনটি কম্পিউটার ভাঙচুর করে।
পরিষদে হামলার খবরে এলাকার মানুষ এগিয়ে এলে তারা পালিয়ে যায়।

তিনি আরও বলেন, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এলাকায় একটি অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করতেই হয়তো কারো ইন্ধনে এই হামলা চালাতে পারে বলে ধারণা করছি।

রাঙ্গুনিয়া থানার উপ পরিদর্শক (এস.আই) মাহবুব হোসেন বলেন, এই বিষয়ে তদন্তে আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। হামলার বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। পরে ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে অভিযান চালিয়ে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এই ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। হামলায় জড়িত বাকীদেরও দ্রুত গ্রেপ্তার করে হামলার মূল রহস্য উদঘাটন করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *