বিদ্যুৎপৃষ্টেই মারা গিয়েছিল ৭০০ কেজির হাতিটি

কক্সবাজার বৃহত্তর চট্টগ্রাম

Sharing is caring!

কক্সবাজারের টেকনাফে খাবারের সন্ধানে আসা সেই হাতির মৃত্যু বিদ্যুৎপৃষ্টেই হয়েছিলো বলে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়েছে। এতে বিদ্যুতায়িত হয়েই হাতিটির মৃত্যু হয়েছে বলে উল্লেখ করেন উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. শওকত আলী ।

শনিবার (১৩ জুন) রাতে ময়নাতদন্ত এ প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়। পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে নিশ্চিত হয়েছেন বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়েই হাতিটির মৃত্যু হয়েছে এবং সে অনুযায়ী প্রতিবেদন তৈরি করে বন বিভাগের কাছে জমা দিয়েছেন বলে জানান ডা. শওকত আলী।

ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে তিনি আরো উল্লেখ করেছেন, মৃত হাতিটির ওজন আনুমানিক ৭০০ কেজি। হাতিটির মাথার দিকে ওপরের চামড়ায় ক্ষত ছিল ও শুঁড়ের ভেন্টাল রিজিয়নে কালো দাগ ছিল। এছাড়া ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে তিনি শরীরের ভেতর-বাইরের অন্যান্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের অবস্থার বর্ণনা দেন।

স্থানীয় বাসিন্দাদের সূত্রে জানা যায়, ২০১৭ সালের দিকে মিয়ানমারের প্রায় ১১ লাখ রোহিঙ্গা উখিয়া টেকনাফের পাহাড়ি এলাকায় আশ্রয় নেয়ার পর থেকেই হাতির পাল আবাসস্থল ও খাদ্য না পেয়ে প্রায় সময় লোকালয়ে নেমে আসছে। এতে বেশ কিছু হাতি মৃত্যুর ঘটনাও ঘটছে৷

উল্লেখ্য, শুক্রবার ভোররাতে উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের পশ্চিম পানখালীর খন্ডা কাটা এলাকায় খাবারের সন্ধানে আসে ৩৫ বছরের এই বন্য দাঁতাল হাতিটি। তখনই বৈদ্যুতিক সঞ্চালন লাইনের সাথে লেগে হাতিটি মারা যায়। যেখানে হাতিটি বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়েছিল সেখানে খুব নিচ দিয়ে পল্লী বিদ্যুতের সঞ্চালন লাইন টানা হয়েছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *